উপস্থিত বক্তৃতা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে যশোরে যুব দিবস উদযাপন

108

‘জাগ্রত বিবেক দুর্জয় তারুণ্য দুর্নীতি রুখবেই’ এ প্রতিপাদ্য নিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআইবি) ও সনাক যশোরের আয়োজনে বৃহস্পতিবার জাতীয় যুব দিবস উদযাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে এদিন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে উপস্থিত বক্তৃতা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
‘দুর্জয় তারুন্যই দুর্নীতি রুখবে’ শীর্ষক প্রতিযোগিতায় পক্ষে ও বিপক্ষে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের দুটি দল অংশ নেন। নির্ধারিত বিষয়ের পক্ষে বক্তব্য দেন শিক্ষার্থী রাশেদুজ্জামান রাশেদ, ওমর ফারুক, সাবিকুন্নাহার, তুলি। বিপক্ষে বক্তব্য তুলে ধরেন তানজীলা খন্দকার, ফারজানা সুরমা, বায়েজিদ মাহমুদ দিদার। প্রতিযোগিতায় বিপক্ষ দল বিজয়ী হয়। সেরা বক্তা হন বিপক্ষ দলের প্রতিযোগী বায়েজীদ মাহমুদ দিদার।
অনুষ্ঠানে মডারেটরের দায়িত্ব পালন ও সভাপতিত্ব করেন সনাক সভাপতি এম আর খায়রুল উমাম। প্রধান অতিথি ছিলেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের উপাধ্যক্ষ আক্তারুজ্জামান তালুকদার। মূল বক্তা ছিলেন দৈনিক গ্রামের কাগজের প্রকাশক ও সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সনাকের সাবেক সভাপতি প্রফেসর ড. মোস্তাফিজুর রহমান, সহ-সভাপতি অধ্যাপক সুরাইয়া শরীফ, এড. প্রশান্ত দেবনাথ, সনাক সদস্য মোয়াজ্জোম হোসেন চৌধুরী টুলু, টিআইবির কর্মী জুয়েল রানা প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, সম্ভাবনাময় তরুণরাই আমাদের কাঙ্খিত গন্তব্য নিয়ে যেতে পারে। তৈরি করতে পারে একটি সুন্দর স্বপ্নের দেশ। এ দেশের ইতিহাসে তরুণদের অনেক গৌরবগাঁথা রয়েছে। বর্তমান সময়ে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ একটি ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। এর থেকে তরুণদের ফিরিয়ে আনতে হলে তাদের সংস্কৃতিবান হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। তারা বলেন, তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার কমাতে হবে। কারিকুলামের বাইরে তরুণদের মনোযোগী করতে হবে। বক্তারা লেখাপড়ার পাশাপাশি তরুণদের খেলাধুলা, শরীর চর্চাসহ সমাজ ও দেশের গঠনমূলক কাজে অংশীদার হওয়ার আহবান জানান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন টিআইবির এরিয়া ম্যানেজার এএইচএম আনিসুজ্জামান।