বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির অপসারণ দাবিতে সাত দিনের কর্মসূচি

25

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ভাইস চ্যান্সেলরের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পদে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা কোঠা না থাকার প্রতিবাদে এ কর্মসূচি পালন করে ২৭টি সংগঠনের জোট বরিশাল সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদসহ প্রগতিশীল বিভিন্ন সংগঠন।

আজ বুধবার বেলা পৌনে ১২টায় নগরীর অশ্বিনী কুমার হলের সামনে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে সভাপতিত্বে করেন বরিশাল সাংষ্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সভাপতি অ্যাড. এস এম ইকবাল।

মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি বগুড়া রোডের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে সংবাদ সম্মেলনে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির অপসারণ দাবিতে আগামী সাত দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে দুর্নীতির তথ্য প্রকাশ, প্রতীক অনশন, মতবিনিময় সভা ও বিক্ষোভ মিছিল।

বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধুলিস্যাৎ করার জন্য বর্তমানে ভিসির সরাসরি তত্ত্বাবধানে ৪১ কর্মকর্তা-কর্মচারীর নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধা কোটা অনুসরণ করা হয়নি। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বাণিজ্যকে প্রতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়ার জন্য স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী চক্র ভিসির সক্রিয় মদদে তৎপর রয়েছে। নানা অনিয়মে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মানকে কলুষিত করা হয়েছে। তারা নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল করে মুক্তিযোদ্ধা কোটা অনুসরনের দাবিসহ ভিসির অপসারণের দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ কুতুব উদ্দিন আহম্মেদ, আ. ছত্তার বীর বিক্রম, সেক্টর কমান্ডার ফোরামের বিভাগীয় সভাপতি প্রদীপ কুমার ঘোষ পুতুল, সেক্টর কমান্ডার্স  ফোরাম ৭১ এর বরিশাল মহানগরের সাধারণ সম্পাদক কাজল ঘোষ, শান্তি দাস, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সৈয়দ আনিচুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ কে এম জাহাঙ্গীর, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি বরিশাল মহানগরের সভাপতি মশিউর রহমান মিন্টু, সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি শেখ সাইয়েদ আহম্মেদ মান্না প্রমুখ।